بِسْمِ اللهِ الرَّحْمنِ الرَّحِيمِ
শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু

وَالْفَجْرِ
শপথ ফজরের,(সূরা ফা’জর ৮৯:১ )

وَلَيَالٍ عَشْرٍ
শপথ দশ রাত্রির, শপথ তার,(সূরা ফা’জর ৮৯:২ )

وَالشَّفْعِ وَالْوَتْرِ
যা জোড় ও যা বিজোড়(সূরা ফা’জর ৮৯:৩ )

আরোঃ বাংলা উচ্চারণ সহ

وَاللَّيْلِ إِذَا يَسْرِ
এবং শপথ রাত্রির যখন তা গত হতে থাকে(সূরা ফা’জর ৮৯:৪ )

هَلْ فِي ذَلِكَ قَسَمٌ لِّذِي حِجْرٍ
এর মধ্যে আছে শপথ জ্ঞানী ব্যক্তির জন্যে।(সূরা ফা’জর ৮৯:৫ )

أَلَمْ تَرَ كَيْفَ فَعَلَ رَبُّكَ بِعَادٍ
আপনি কি লক্ষ্য করেননি, আপনার পালনকর্তা আদ বংশের ইরাম গোত্রের সাথে কি আচরণ করেছিলেন,(সূরা ফা’জর ৮৯:৬ )

إِرَمَ ذَاتِ الْعِمَادِ
যাদের দৈহিক গঠন স্তম্ভ ও খুঁটির ন্যায় দীর্ঘ ছিল এবং(সূরা ফা’জর ৮৯:৭ )

الَّتِي لَمْ يُخْلَقْ مِثْلُهَا فِي الْبِلَادِ
যাদের সমান শক্তি ও বলবীর্যে সারা বিশ্বের শহরসমূহে কোন লোক সৃজিত হয়নি(সূরা ফা’জর ৮৯:৮ )

وَثَمُودَ الَّذِينَ جَابُوا الصَّخْرَ بِالْوَادِ
এবং সামুদ গোত্রের সাথে, যারা উপত্যকায় পাথর কেটে গৃহ নির্মাণ করেছিল।(সূরা ফা’জর ৮৯:৯ )

وَفِرْعَوْنَ ذِي الْأَوْتَادِ
এবং বহু কীলকের অধিপতি ফেরাউনের সাথে(সূরা ফা’জর ৮৯:১০ )

الَّذِينَ طَغَوْا فِي الْبِلَادِ
যারা দেশে সীমালঙ্ঘন করেছিল।(সূরা ফা’জর ৮৯:১১ )

فَأَكْثَرُوا فِيهَا الْفَسَادَ
অতঃপর সেখানে বিস্তর অশান্তি সৃষ্টি করেছিল।(সূরা ফা’জর ৮৯:১২ )

فَصَبَّ عَلَيْهِمْ رَبُّكَ سَوْطَ عَذَابٍ
অতঃপর আপনার পালনকর্তা তাদেরকে শাস্তির কশাঘাত করলেন।(সূরা ফা’জর ৮৯:১৩ )

إِنَّ رَبَّكَ لَبِالْمِرْصَادِ
নিশ্চয় আপনার পালকর্তা সতর্ক দৃষ্টি রাখেন।(সূরা ফা’জর ৮৯:১৪ )

فَأَمَّا الْإِنسَانُ إِذَا مَا ابْتَلَاهُ رَبُّهُ فَأَكْرَمَهُ وَنَعَّمَهُ فَيَقُولُ رَبِّي أَكْرَمَنِ
মানুষ এরূপ যে, যখন তার পালনকর্তা তাকে পরীক্ষা করেন, অতঃপর সম্মান ও অনুগ্রহ দান করেন, তখন বলে, আমার পালনকর্তা আমাকে সম্মান দান করেছেন।(সূরা ফা’জর ৮৯:১৫ )

وَأَمَّا إِذَا مَا ابْتَلَاهُ فَقَدَرَ عَلَيْهِ رِزْقَهُ فَيَقُولُ رَبِّي أَهَانَنِ
এবং যখন তাকে পরীক্ষা করেন, অতঃপর রিযিক সংকুচিত করে দেন, তখন বলেঃ আমার পালনকর্তা আমাকে হেয় করেছেন।(সূরা ফা’জর ৮৯:১৬ )

كَلَّا بَل لَّا تُكْرِمُونَ الْيَتِيمَ
এটা অমূলক, বরং তোমরা এতীমকে সম্মান কর না।(সূরা ফা’জর ৮৯:১৭ )

وَلَا تَحَاضُّونَ عَلَى طَعَامِ الْمِسْكِينِ
এবং মিসকীনকে অন্নদানে পরস্পরকে উৎসাহিত কর না।(সূরা ফা’জর ৮৯:১৮ )

وَتَأْكُلُونَ التُّرَاثَ أَكْلًا لَّمًّا
এবং তোমরা মৃতের ত্যাজ্য সম্পত্তি সম্পূর্ণরূপে কুক্ষিগত করে ফেল(সূরা ফা’জর ৮৯:১৯ )

وَتُحِبُّونَ الْمَالَ حُبًّا جَمًّا
এবং তোমরা ধন-সম্পদকে প্রাণভরে ভালবাস।(সূরা ফা’জর ৮৯:২০ )

كَلَّا إِذَا دُكَّتِ الْأَرْضُ دَكًّا دَكًّا
এটা অনুচিত। যখন পৃথিবী চুর্ণ-বিচুর ্ণ হবে(সূরা ফা’জর ৮৯:২১ )

وَجَاء رَبُّكَ وَالْمَلَكُ صَفًّا صَفًّا
এবং আপনার পালনকর্তা ও ফেরেশতাগণ সারিবদ্ধভাবে উপস্থিত হবেন,(সূরা ফা’জর ৮৯:২২ )

وَجِيءَ يَوْمَئِذٍ بِجَهَنَّمَ يَوْمَئِذٍ يَتَذَكَّرُ الْإِنسَانُ وَأَنَّى لَهُ الذِّكْرَى
এবং সেদিন জাহান্নামকে আনা হবে, সেদিন মানুষ স্মরণ করবে, কিন্তু এই স্মরণ তার কি কাজে আসবে?(সূরা ফা’জর ৮৯:২৩ )

يَقُولُ يَا لَيْتَنِي قَدَّمْتُ لِحَيَاتِي
সে বলবেঃ হায়, এ জীবনের জন্যে আমি যদি কিছু অগ্রে প্রেরণ করতাম!(সূরা ফা’জর ৮৯:২৪ )

فَيَوْمَئِذٍ لَّا يُعَذِّبُ عَذَابَهُ أَحَدٌ
সেদিন তার শাস্তির মত শাস্তি কেউ দিবে না।(সূরা ফা’জর ৮৯:২৫ )

وَلَا يُوثِقُ وَثَاقَهُ أَحَدٌ
এবং তার বন্ধনের মত বন্ধন কেউ দিবে না।(সূরা ফা’জর ৮৯:২৬ )

يَا أَيَّتُهَا النَّفْسُ الْمُطْمَئِنَّةُ
হে প্রশান্ত মন,(সূরা ফা’জর ৮৯:২৭ )

ارْجِعِي إِلَى رَبِّكِ رَاضِيَةً مَّرْضِيَّةً
তুমি তোমার পালনকর্তার নিকট ফিরে যাও সন্তুষ্ট ও সন্তোষভাজন হয়ে।(সূরা ফা’জর ৮৯:২৮ )

فَادْخُلِي فِي عِبَادِي
অতঃপর আমার বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাও।(সূরা ফা’জর ৮৯:২৯ )

وَادْخُلِي جَنَّتِي
এবং আমার জান্নাতে প্রবেশ কর।(সূরা ফা’জর ৮৯:৩০ )