بِسْمِ اللهِ الرَّحْمنِ الرَّحِيمِ
শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু

وَالسَّمَاء وَالطَّارِقِ
শপথ আকাশের এবং রাত্রিতে আগমনকারীর।(সূরা তারিক ৮৬:১ )

وَمَا أَدْرَاكَ مَا الطَّارِقُ
আপনি জানেন, যে রাত্রিতে আসে সেটা কি?(সূরা তারিক ৮৬:২ )

আরোঃ বাংলা উচ্চারণ সহ

النَّجْمُ الثَّاقِبُ
সেটা এক উজ্জ্বল নক্ষত্র।(সূরা তারিক ৮৬:৩ )

إِن كُلُّ نَفْسٍ لَّمَّا عَلَيْهَا حَافِظٌ
প্রত্যেকের উপর একজন তত্ত্বাবধায়ক রয়েছে।(সূরা তারিক ৮৬:৪ )

فَلْيَنظُرِ الْإِنسَانُ مِمَّ خُلِقَ
অতএব, মানুষের দেখা উচিত কি বস্তু থেকে সে সৃজিত হয়েছে।(সূরা তারিক ৮৬:৫ )

خُلِقَ مِن مَّاء دَافِقٍ
সে সৃজিত হয়েছে সবেগে স্খলিত পানি থেকে।(সূরা তারিক ৮৬:৬ )

يَخْرُجُ مِن بَيْنِ الصُّلْبِ وَالتَّرَائِبِ
এটা নির্গত হয় মেরুদন্ড ও বক্ষপাজরের মধ্য থেকে।(সূরা তারিক ৮৬:৭ )

إِنَّهُ عَلَى رَجْعِهِ لَقَادِرٌ
নিশ্চয় তিনি তাকে ফিরিয়ে নিতে সক্ষম।(সূরা তারিক ৮৬:৮ )

يَوْمَ تُبْلَى السَّرَائِرُ

যেদিন গোপন বিষয়াদি পরীক্ষিত হবে,(সূরা তারিক ৮৬:৯ )

فَمَا لَهُ مِن قُوَّةٍ وَلَا نَاصِرٍ
সেদিন তার কোন শক্তি থাকবে না এবং সাহায্যকারীও থাকবে না।(সূরা তারিক ৮৬:১০ )

وَالسَّمَاء ذَاتِ الرَّجْعِ
শপথ চক্রশীল আকাশের(সূরা তারিক ৮৬:১১ )

وَالْأَرْضِ ذَاتِ الصَّدْعِ
এবং বিদারনশীল পৃথিবীর(সূরা তারিক ৮৬:১২ )

إِنَّهُ لَقَوْلٌ فَصْلٌ
নিশ্চয় কোরআন সত্য-মিথ্যা র ফয়সালা।(সূরা তারিক ৮৬:১৩ )

وَمَا هُوَ بِالْهَزْلِ
এবং এটা উপহাস নয়।(সূরা তারিক ৮৬:১৪ )

إِنَّهُمْ يَكِيدُونَ كَيْدًا
তারা ভীষণ চক্রান্ত করে,(সূরা তারিক ৮৬:১৫ )

وَأَكِيدُ كَيْدًا
আর আমিও কৌশল করি।(সূরা তারিক ৮৬:১৬ )

فَمَهِّلِ الْكَافِرِينَ أَمْهِلْهُمْ رُوَيْدًا
অতএব, কাফেরদেরকে অবকাশ দিন, তাদেরকে অবকাশ দিন, কিছু দিনের জন্যে।(সূরা তারিক ৮৬:১৭ )