আম পাতার উপকারিতাঃ আমের পাতা? এটা পড়ে অনেকেই ভ্রু কুঁচকেছেন। যেহেতু আমরা সবাই আম ফলের বিশাল ভক্ত তাই যে কোন সময় আম খেতে পারি। কিন্তু কখনো কি আম পাতা খাওয়ার কথা ভেবেছেন? না..!!

আমরা বাঙ্গালিরা শুধুমাত্র একটি উৎসবের দিনে বা শুভ দিনে আম পাতার ব্যবহার জানি। যেমন, বাড়িতে প্রথম প্রবেশের জন্য আমাদের নানী দাদিরা এবং মায়েরা আম পাতার মালা তৈরি করতেন। এ ছাড়া আম পাতার ব্যবহার আমরা খুব কমই জানি। আরও দেখুনঃ পেয়ারা পাতার উপকারিতা

আম পাতার উপকারিতা

আম পাতার উপকারিতা

আম হল ফলের রাজা যা তার বিভিন্ন জাত নিয়ে সারা বিশ্বে জনপ্রিয়। এগুলো যেমন সুস্বাদু তেমনি স্বাস্থ্যকর। আশ্চর্যজনকভাবে, আম পাতাও আপনার স্বাস্থ্যের জন্য সমানভাবে প্রয়োজনীয়। বৈজ্ঞানিকভাবে আমের পাতা Mangifera Indica নামে পরিচিত। আয়ুর্বেদ এবং ঐতিহ্যবাহী চীনা ঔষধ অনুসারে, আমের পাতা এখন হাজার হাজার বছর ধরে তাদের নিরাময়ের বৈশিষ্ট্যের জন্য ব্যবহার করা হয়। আম পাতার উপকারিতা এতই বৈচিত্র্যময় এবং বিস্তৃত যে প্রাচ্য চিকিৎসায়ও এগুলোকে অপরিসীম গুরুত্ব দেওয়া হয়। আরও দেখুনঃ ব্রণ দূর করার ফেসওয়াস

আমের পাতা কি ভোজ্য?

হ্যাঁ, আপনি তাদের খেতে পারেন। কচি সবুজ আমের পাতা খুব কোমল, তাই কিছু সংস্কৃতিতে সেগুলি রান্না করে খাওয়া হয়। পাতাগুলি এতই পুষ্টিকর যে আপনি চা বা অন্যান্য পরিপূরকও তৈরি করতে পারেন।

আম-পাতার চা বানাবেন কীভাবে?

  • তাজা এবং উজ্জ্বল আমের পাতা বা এমনকি 10 থেকে 15টি বাচ্চা পাতা নিন এবং ধুয়ে ফেলুন।
  • পাতা কুচি করে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিন।
  • সেই টুকরোগুলোকে চা ইনফিউসারে কিছু মধু দিয়ে যোগ করুন।
  • ইনফিউজারে ফুটানো জল যোগ করুন এবং এটি ঢেকে দিন। প্রায় 10 মিনিটের জন্য পাতাগুলি খাড়া হতে দিন।
  • ইনফিউজারটি সরান এবং একটি কাপ বা গ্লাসে জল ঢেলে দিন।

আম পাতার পুষ্টিগুণ

আমের পাতায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, ভিটামিন এ এবং ভিটামিন বি রয়েছে। এতে স্টেরয়েড, অ্যালকালয়েড, রাইবোফ্লাভিন, থায়ামিন, ফেনোলিক, বিটা-ক্যারোটিন, ফ্ল্যাভোনয়েড ইত্যাদির মতো অন্যান্য যৌগ রয়েছে। আম পাতায় প্রচুর পরিমাণে টারপেনয়েড এবং পলিফেনল রয়েছে, যা। উদ্ভিদ যৌগ যা রোগ থেকে রক্ষা করে এবং আপনার শরীরে প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করে। আরও দেখুনঃ হরলিক্স এর উপকারিতা

আম পাতার স্বাস্থ্য উপকারিতা

আমের পাতা বহুমুখী। তাদের স্বাস্থ্য উপকারিতা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য।

১. ত্বক স্বাস্থ্য সমর্থন করে

আম পাতায় ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় সব পুষ্টি উপাদান রয়েছে। আম পাতার নির্যাস ত্বকের সূক্ষ্ম রেখা, বার্ধক্যের লক্ষণ এবং ত্বকের শুষ্কতা কমাতে পারে। এটি কোলাজেন উৎপাদনে সাহায্য করে যা মুখের বলিরেখা এবং সূক্ষ্ম রেখা কমাতে পারে। আমের পাতায় অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ব্যাকটেরিয়াজনিত ত্বকের সংক্রমণ যেমন স্টাফ সংক্রমণ এবং ত্বকের পোড়া রোগের চিকিৎসায় সাহায্য করে। আমের পাতায় প্রয়োজনীয় গুণাবলী এবং পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা ত্বকের পোড়া এবং স্ক্যাল্ডস সারাতে সাহায্য করে। আমের পাতায় উপস্থিত অ্যান্থোসায়ানিন পোড়া থেকে তাৎক্ষণিক মুক্তি দেয়।

কীভাবে ব্যবহার করবেন – তাত্ক্ষণিক ফলাফলের জন্য, কিছু আমের পাতা নিন এবং পুড়িয়ে ফেলুন। তারপর পাতা থেকে ছাই নিয়ে পোড়া জায়গায় লাগান।

২. চুলের সমস্যার জন্য চমৎকার কাজ করে

চুলের বৃদ্ধির জন্য আম পাতার ব্যবহার দ্রুত চুল গজাতে একটি প্রাচীন কৌশল। পাতায় ভিটামিন সি এবং এ-এর মতো পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ, যা স্বাস্থ্যকর চুলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কোলাজেনের উৎপাদন বাড়ায়। এটি আপনার নিস্তেজ চুলে একটি উজ্জ্বলতা দেয়। আপনার চুল রাসায়নিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলে, আমের পাতা উদ্ধারের জন্য আসে। আম পাতায় উপস্থিত ফ্ল্যাভোনয়েড প্রাকৃতিকভাবে চুলকে কালো করতে পারে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন – তাজা আমের পাতা থেকে একটি সূক্ষ্ম পেস্ট তৈরি করুন। পেস্টটি চুলে লাগান এবং প্রায় ১৫ মিনিট পরে জল দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে ফেলুন।

৩. রক্তে শর্করার মাত্রা- ভারসাম্য বজায় রাখে

ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে শর্করার মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখতে আম পাতা চমৎকার। এই পাতাগুলিতে অ্যান্থোসায়ানিডিন নামক ট্যানিন থাকে যা প্রাথমিক ডায়াবেটিস নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে। এটিতে 3 বিটা ট্যারাক্সেরল এবং ইথাইল অ্যাসিটেটও রয়েছে, যা হাইপারগ্লাইসেমিয়া (রক্তে শর্করার মাত্রা বৃদ্ধি) চিকিত্সা করতে সহায়তা করে।

যেভাবে ব্যবহার করবেন- এক কাপ পানিতে ১০-১৫টি আমের পাতা ফুটিয়ে নিতে পারেন। তারপর সারারাত পানি ঠাণ্ডা করে রেখে দিন এবং সকালে খালি পেটে পান করুন।

৪. উচ্চ রক্তচাপ পরিচালনা করুন

আম পাতায় হাইপোটেনসিভ বৈশিষ্ট্য রয়েছে যার অর্থ এটি রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। পাতা রক্তনালীকে শক্তিশালী ও সুস্থ করে তোলে। আমের পাতা ভেরিকোজ ভেইনগুলির জন্য একটি কার্যকর প্রতিকার।

কীভাবে ব্যবহার করবেন – আম পাতার চা উচ্চ রক্তচাপ নিরাময়ে সাহায্য করতে পারে।

৫. পিত্ত এবং কিডনি পাথর চিকিত্সায়

আম পাতার গুঁড়া পিত্তপাথর এবং কিডনিতে পাথরের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। এটি কিডনিতে পাথর ভেঙ্গে প্রস্রাবের মাধ্যমে আপনার শরীর থেকে বের করে দিতে সাহায্য করে। পাতা শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন অপসারণের জন্য সেরা ফর্ম।

কীভাবে ব্যবহার করবেন- কিছু আমের পাতা নিয়ে শুকিয়ে নিন। এগুলিকে গুঁড়ো করে জলে মিশিয়ে নিন। পানি সারারাত রেখে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে পান করুন।

৬. পেটের আলসার এবং হেঁচকির চিকিৎসায়

আমের পাতা প্রাচীনকাল থেকেই পেটের আলসার এবং হেঁচকিতে সাহায্য করার জন্য উপকারী ছিল। কখনও কখনও হেঁচকি জেদি হয় যে এটি বন্ধ করা কঠিন। এই পরিস্থিতিতে, আমের পাতা জাদুকরী কাজ করে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন – কিছু আমের পাতা পুড়িয়ে ধোঁয়া শ্বাস নিন। এটি হেঁচকি কমাতে সাহায্য করবে। এছাড়াও আপনি প্রতিদিন আম পাতা দিয়ে গরম পানি পান করতে পারেন পেটের আলসারের জন্য উপকারী হবে।

৭. ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে

গবেষণায় দেখা গেছে আম পাতা শরীরে চর্বি জমার মাত্রা কমিয়ে স্থূলতা কমাতে সাহায্য করে। এটি এমনকি ডায়াবেটিস পরিচালনা করতে সাহায্য করতে পারে এবং এটি একটি উচ্চ বিপাকীয় হারের দিকে নিয়ে যেতে পারে যা আপনাকে ওজন বাড়াতে বাধা দেবে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন – ১৫০ মিঃ লিঃ জলে এক মুঠো পাতা সিদ্ধ করে একটি আম পাতার চা তৈরি করুন। তাজা পাতা সহজে পাওয়া না গেলে আপনি আমের পাতার গুঁড়া বা নির্যাসও ব্যবহার করতে পারেন।

৮. বিরোধী প্রদাহজনক বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে

গবেষণায় দেখা গেছে যে আমের পাতায় প্রাণীদের মধ্যে প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা পরামর্শ দেয় যে তারা আপনার মস্তিষ্ককে পারকিনসন এবং আলঝেইমারের মতো রোগ থেকে রক্ষা করতে পারে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন – আম পাতার নির্যাস থেকে তৈরি চা প্রদাহ কমাতে পারে।

আম পাতার উপকারিতা কম জানা নেই। এই পাতাগুলি ভিটামিন এ, বি, এবং সি এবং অনেক উপকারী পুষ্টি যা সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে উন্নীত করে। আমের পাতা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং রক্তচাপ কমায়। এছাড়াও, এটি কার্যকরভাবে অস্থিরতা, শ্বাসকষ্ট, আমাশয় এবং কানের ব্যথা নিরাময় করে। আমের পাতাও পোড়া নিরাময় করে এবং কিডনি ও পিত্তথলির পাথরের চিকিৎসায় সাহায্য করে। এই পাতাগুলি হেঁচকি এবং গলার সমস্যাগুলিরও চিকিত্সা করে এবং এই পাতাগুলির আধান একটি কার্যকর পেট টনিক যা পেট সম্পর্কিত অনেক অসুস্থতা থেকে মুক্তি দিতে সহায়তা করে। আপনার ডায়েটে আমের পাতা অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করুন তারা যে সুবিধাগুলি দেয় তা কাটাতে।