হাত কাটা পিক এবং হাত কাটা রক্তের ছবির জন্য আজকালকার ছেলে মেয়েরা একেবারে অন্য হয়ে খোঁজাখুঁজি করে। এর প্রধান কারণ হলো তারা ইন্টারনেট থেকে হাত কাটা পিক ডাউনলোড করে গার্লফ্রেন্ড কিংবা বয়ফ্রেন্ডকে দিয়ে ইমপ্রেস করতে চায় এবং বোঝাতে চায় যে তাকে সে কত ভালোবাসে। আরও দেখুনঃ ভালোবাসার ছন্দ স্ট্যাটাস | নতুন ভালোবাসার ছন্দ

Hat Kata Picture HD

কিন্তু এটা বোঝা উচিত যে আজকাল এ সকল হাজার হাজার ছবি ইন্টারনেটে একটু খুঁজলেই পাওয়া যায়। তাছাড়া সময়ের পরিবর্তনের কারণে এখন সাধারণ প্রেমিক-প্রেমিকার জন্য আর কেউ হাত কেটে নিজের রক্তের অপচয় করে না এবং নিজেকে কষ্ট দেয় না। 

আরও দেখুনঃ বাংলা শর্ট ক্যাপশন

এতকিছুর পরেও যদি আপনি হাত কাটা ছবির খোঁজ করে থাকেন তবে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। এখানে আমরা ছেলে এবং মেয়েদের হাত কাটা ছবি তালিকা আকারে সাজিয়ে দিয়েছি। এই ছবিগুলো আপনি সকল কাজে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে সাবধান এসব ছবি ব্যবহার করে কাউকে ইমপ্রেস করতে গিয়ে অপমানিত হবে না। কারণ এই ছবিগুলো দেখলেই বোঝা যায় যেগুলো ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করা। আরও দেখুনঃ রোমান্টিক এসএমএস

হাত কাটা পিক

আরও দেখুনঃ ২০০+ মেহেদি ডিজাইন ২০২২ ছবি

হাত কাটা রক্তের ছবি ডাউনলোড

হাত কাটার ছবি

হাত কাটা রক্তের ছবি

যাইহোক এত কিছু বলে কিংবা এত সাবধান করে আবার কাজ নেই। আপনাদেরকে হাত কাটা ছবি দেওয়ার কথা আমি দিয়ে দিলাম এখন বাকিটা দায়-দায়িত্ব আপনাদের। এখান থেকে ছবি নিয়ে বৈধ এবং অবৈধ কোন কাজে ব্যবহার করলে কিংবা কোন আইনি জটিলতা থাকলে আমি কিংবা আমার ওয়েবসাইট অবশ্যই দায়ী থাকবো না। সুতরাং এই ছবিগুলো ব্যবহার করার পূর্বে নিজ দায়িত্বে ব্যবহার করবেন।  আরও দেখুনঃ ছবি সংগ্রহ

হাত কাটা ব্যান্ডেজ এর ছবি

হাত কাটা ছবি

চলুন একটা গল্প শোনাই। আমার একটা বন্ধু ছিল নাম হচ্ছে ইমরান। হাই স্কুলে পড়া অবস্থায় এসে একটা মেয়েকে খুব পছন্দ করত কিন্তু বারবার প্রস্তাব দেওয়ার পরেও সেই মেয়েটা রাজি হতো না। প্রস্তাব বলতে আবার অন্য কিছু বুঝবেন না কারণ আমরা যখন হাইস্কুলে পড়ি তখন আজকালকার অন্য কিছু অতটাও বুঝতাম না। অনেকদিন ধরে প্রেমের প্রস্তাব দেওয়ার পরেও সে যখন রাজি হচ্ছিল না তখন আমার বন্ধু একটা বুদ্ধি আটলো। আরও দেখুনঃ মেয়েদের ছবি | মেয়েদের পিকচার ছবি

Hat Katar Pic

পরের দিন সেই স্কুলে না গিয়ে তার পাশের বাড়ির একটা ছেলেকে দিয়ে সেই চিঠি তার প্রেমিকার কাছে পৌঁছে দিল এবং তাকে বলতে বলল যে সে হাত কেটে রক্ত দিয়ে চিঠি লিখেছে তাই অসুস্থ হয়ে বাড়িতে পড়ে রয়েছে।

যাই হোক এই খবর শুনে তার প্রেমিকা একেবারে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ল এবং সাথে সাথে রাজি হয়ে গেল। সেদিনও তার পাশের বাড়ির ছেলেকে দিয়ে একটা চিঠি পাঠিয়ে দিল যে সে তার সাথে প্রেম করতে রাজি এবং ভবিষ্যতে যেন আর কখনো হাত না কাটে।

সে পরের দিন সন্ধ্যা বেলা তাদের গরুর গোয়ালে গেল এবং ছোটখাটো মশারির মতো একটা নেট ব্যবহার করে অনেকগুলো মশা ধরল। মশাগুলো নেটের ভিতরে পুড়ে প্রায় এক মুঠো মশা হয়ে গেল তারপর সে মশাগুলো থেকে চিপে রক্ত বের করল। রক্ত বের করে সেই রক্ত দিয়ে তার প্রেমিকার উদ্দেশ্যে একটা চিঠি লিখল। 

এ ঘটনা তার প্রেমিকা অবশ্য কোনদিনও জানতে পারেনি কিন্তু পরবর্তীতে আমরা আমার সেই বন্ধুকে ধরে জানতে পেরেছিলাম যে সে নাকি এমন একটা মজার কাজ করেছিল।

তাই আগেভাগেই বলে রাখা ভালো যে হাত কাটা ছবি কিংবা ফেসবুক স্ট্যাটাস দেখে গলে পড়ার কিছু নাই। আপনার প্রেমিক কিংবা প্রেমিকা ও যে মশার রক্ত ব্যবহার করে হাতের উপর লাগায়নি কিংবা ছবি ফেসবুক থেকে ডাউনলোড করে আবার ফেসবুকে পোস্ট করেনি এর কিন্তু কোন গ্যারান্টি নাই।

সুতরাং যেটাই করবেন ভেবেচিন্তে করবেন। 

বোবা প্রেমিক

সুমন জন্ম থেকেই কথা বলতে পারেনা। কিন্তু তার মনটা অনেক ভালো। সে প্রতিদিন বিকেলবেলা একটা মেয়েকে দেখে এবং মেয়েটাকে তার অনেক ভালো লাগে। কিন্তু মুখ ফুটে মেয়েটাকে কখনো বলতে পারে না এমনকি বোঝাতে পারে না যে আমি তোমাকে ভালোবাসি।

প্রতিদিন মেয়েটা প্রাইভেট পড়তে যায় তার বান্ধবীর সাথে আর সুমন অনেক দূর থেকে মেয়েটাকে ফলো করতে করতে মেয়েটা পিছন পিছন প্রাইভেট পর্যন্ত যায়। মেয়েটার নাম সুমি। কোন ভাবে মেয়েটা যদি পেছন দিকে ফিরে তাকায় সুমন সাথে সাথে অন্য দিকে রাস্তা নিয়ে রওনা দেয়। সুমন বুঝতে দিতে চায় না যে সে সুমির পেছনে লেগে আছে কিংবা সুমিকে পছন্দ করে।

সুমি যখন প্রাইভেট শেষ করে তার বাড়ির দিকে রওনা হয় তখন সুমন আবারো পেছনে হাত দিয়ে সুমির পেছনে পেছনে হাঁটতে থাকে। সুমি নিজেও বুঝে যে এই ছেলেটা তাকে অনেকদিন ধরে ফলো করে। সত্যি কথা বললে তুমি নিজেও মনে মনে ভাবে যে আমারও তো এই ছেলেটাকে ভালো লাগে। কিন্তু এই ছেলেটা এতই ভীতু যে কোনভাবেই তাকে এসে একটা দিন বলেনি যে সে আমি তোমাকে ভালোবাসি। এটা ভেবে সুমি মনে মনে বলে যে এ রকম ছেলে দরকার নাই যে মুখ ফুটে বলতে পারে না আমি ভালোবাসি।

একদিন সুমি প্রাইভেট শেষ করে তার বাড়ির দিকে তার বান্ধবীর সাথে রওনা দিয়েছে এবং অন্যান্য দিনের মত ঠিক একইভাবে সুমন সুমির পেছনে একা একা হেঁটে হেঁটে আসছে। সুমি বারবার তাকাচ্ছে কিন্তু যখন ঐ ছেলেটা দেখতে পাচ্ছে তখন সে অন্যদিকে হয়ে যাচ্ছে। সুমি যখন তার বাড়ির কাছে এসে পড়ল তখন ছেলেটা অনেক দূরে দাঁড়িয়ে গেল এবং সুমি ছেলেটার দিকে একবার তাকিয়ে বাড়ির গেটের ভেতরে প্রবেশ করল। 

বাড়ির ভেতরে গিয়ে দেখল যে ছেলেটাও তার বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে আছে মুখ বুঝে কিন্তু কোন কথা নেই। 

তখন সুমনকে চমকে দিয়ে সুমি বাড়ির ভেতর থেকে হঠাৎ সুমনের সামনে এসে দাঁড়িয়ে বললো যে আজ প্রায় দুই বছর ধরে তুমি আমাকে নিয়মিত অনুসরণ করো। তুমি আসলে আমাকে কি বলতে চাও আজ বল।

আজকে আমি তোমার সব কথা তোমার সামনে দাঁড়িয়ে থেকে শুনবো।

কিন্তু সুমন্ত কথা বলতে পারে না তাই সে কিছু বলতে পারে না শুধু চেয়ে থাকে। সুমি তখন বলল যে কি ব্যাপার কিছু বলছো না কেন। 

সুমন কিছু বলার জন্য বাঁহাত দিয়ে ইশারা করে বোঝানোর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে এমন সময় সুমি বলল যে কিছু যখন বলবে না তখন আমার পেছন পেছন তুমি গুরো কেনো। আমি ভেবেছিলাম তুমি অনেক সাহসী ছেলে কিন্তু তোমার সামনে এসে দেখার পর মনে হচ্ছে তুমি একটা ভীতুর ডিম। আমিও তোমাকে পছন্দ করতাম কিন্তু তোমার মত ছেলেকে ভালবাসলে আমার সাথে কোনভাবেই হবে না।

সুমন তখন হাত দিয়ে ইশারা করে বুঝাতে চাইলো যে সে কথা বলতে পারেনা। কিন্তু সুমি বরং সেটা না বুঝে উলটে গিয়ে বলল যে তুমি বোবা নাকি কথা বলতে পারোনা। বেশি ভাবনা দেখিয়ে এখান থেকে চলে যাও। তোমার মত ছেলের আমাকে দরকার নেই। 

এই কথা বলতেই সুমন তার পকেট থেকে একটা কাগজ বের করে সুমির সামনে মেলে ধরলো। সুমি যদিও লেগেছিল কিন্তু তার পরেও সে কাগজের দিকে তাকিয়ে পড়তে লাগলো।

কাগজে যা লেখা ছিল

ছোটবেলা থেকেই আমি কথা বলতে পারিনা। ছোটবেলায় বাবা মাকে হারিয়েছি। বাবা মায়ের আদর ভালোবাসা কি জিনিস সেটা কখনো বোঝেনি। রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে মানুষ হয়েছি। কোন মেয়ে আমাকে যে পছন্দ করবে সেটা আমি কখনো ভাবতেও পারিনা। কারণ আমি তো কথা বলতে পারিনা। 

এখন নাকি মেয়েদের পছন্দের মানুষ হতে হলে মিষ্টি মিষ্টি কথা বলতে হয়। কিন্তু আমার কপাল কেমন দেখো সৃষ্টিকর্তা আমাকে ছোটবেলা থেকেই কথা বিহীন মানুষ হিসেবে পাঠিয়েছে। জন্মের সময়  আমার মুখ থেকে আমার মুখের কথা গুলো কেড়ে নেওয়া হয়েছে। এটা কি আমার দোষ বলো।

দুই বছরে তোমার পেছনে ঘুরেছি আর কতবার যে বলেছি যে তোমাকে বোঝাবো আমি তোমাকে ভালোবাসি। কিন্তু কিভাবে বোঝাবো বল। আজ দুই বছর হল এই কাগজ তোর পকেটে নিয়ে তোমার পেছনে আমি ঘুরছি। সাহস পাইনা যে তোমাকে বলবো আমি তোমাকে ভালোবাসি। 

সাহস পায় না বলতে যে তোমায় আমি আমার জীবন সঙ্গিনী করে নিতে চাই। যদি তুমি বলে ফেলো যে একটা বোবা কে কেন আমি বিয়ে করবো। যদি তুমি বলো যে তোমার মতো রাস্তার ছেলের সাথে আমাকে মানাবে না। তাই শুধু দূর থেকে তোমাকে দেখেছি। আজ যখন তুমি আমার সামনে দাঁড়িয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করছ যে কি বলতে চাও বলো। ঠিক তখনও আমি তোমাকে বলতে পারছিনা যে তোমায় আমি খুব ভালোবাসি। কি আমার ভাগ্য।

কিন্তু এতগুলো কষ্টের মাঝেও আমার একটা সুখ লুকিয়ে আছে। সেটা কি জানো। সেটা হলো আমি তোমায় ভালোবাসি।

কথাগুলো সুমি পড়ছিল আর তার চোখ দিয়ে পানি ঝরে পড়ছিল। পড়ার শেষে সুমি সুমনের চোখের দিকে তাকিয়ে দেখল যে সুমনের চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়ছে। আর সুমন অজর দৃষ্টিতে তাকিয়ে রয়েছে সুমির দুই চোখের দিকে।

এটা দেখার পর সুমি সুমন কে ফেলে রেখে দৌড়ে বাড়ির ভেতরে পালিয়ে গেল। কাঁদতে কাঁদতে বাড়ির ভেতরে চলে গেল সুমি।

সুমন মনে মনে ভাবছে যে আমার কপালটাই খারাপ। এতটা বছর যার পেছনে ঘুরে বেড়ালাম যাকে পছন্দ করি বললামমুখের কথা নেই বলে সে আমাকে ছেড়ে চলে গেল। সৃষ্টিকর্তার এমনই এক খেলার শিকার আমি।

এসব ভাবতে ভাবতে সুমন বাড়ির দিকে হাঁটছে আর দু চোখের পানি মুছছে আর ভাবছে যে কি দোষ করেছিলাম আমি খোদা যার কারণে তুমি আমাকে এমন শাস্তি দিচ্ছ। কাঁদছে আর হেঁটে হেঁটে বাড়ির পথে রওনা দিচ্ছে। 

ঠিক এমন সময় পেছন থেকে নরম দুটো হাত সুমনের হাত চেপে ধরলো। সুমন কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঝাটকা দিয়ে সুমনকে সামনের দিকে ঘুরিয়ে নিয়ে সুমনের বুকের ভেতরে মাথা গুঁজে চোখ বন্ধ করে কান্না করা শুরু করলো সুমি। আর বলতে লাগলো আমিও যে তোমায় সত্যি খুব ভালোবাসি।

ভালোবাসার জন্য মুখের কথার প্রয়োজন হয় না। ভালোবাসার জন্য দরকার হয় তোমার মনের মত সুন্দর একটা মন। আর এটাই আমার সারা জীবনের সুখের জন্য যথেষ্ট। তুমি রাখবে আমায় তোমার করে সারা জীবন?

সুমন এই কথা শুনে নিজের চোখের পানি ধরে রাখতে পারল না এবং তারপরে সুমিকে জড়িয়ে ধরে আনন্দের অশ্রু গঙ্গা বই এ দিল।

হাত কাটা রক্ত

হাত কাটা রক্তের ছবি

হাতে ব্যান্ডেজ করা ছবি

হাত কাটা পিক, হাত কাটা, হাত কাটা রক্তের ছবি, হাত কাটা রক্ত, হাত কাটার পিক, হাতের পিক, হাত কাটা ছবি, পা কাটার ছবি, হাত কাটার ছবি, হাত কাটা পিক 2022, হাত কাটা পিক ছেলেদের ডাউনলোড, হাত কাটা পিক ২০২১, হাত কাটা পিক j, S অক্ষর দিয়ে হাত কাটা ছবি, শেয়ারচ্যাট হাত কাটা ছবি।

hat kater picture, hat kata pic local, hat kata pik, hat kata photo bengali, hat kater photo, hat katar pic, hat kata pic, hat kata, hat kater picture, hat kata pic local, hat kata pik, hat kata photo bengali, hat kater photo, hat katar pic, hat kata pic, hat kata.

হাত কাটা পিক, হাত কাটা ছবি ডাউনলোড (Download) – Hat Kata Picture HD হাত কাটা পিক, হাত কাটা ছবি ডাউনলোড (Download) – Hat Kata Picture HD হাত কাটা পিক, হাত কাটা ছবি ডাউনলোড (Download) – Hat Kata Picture HD হাত কাটা পিক, হাত কাটা ছবি ডাউনলোড (Download) – Hat Kata Picture HD হাত কাটা পিক, হাত কাটা ছবি ডাউনলোড (Download) – Hat Kata Picture HD, হাত কাটা বেন্ডেজ, হাত কাটা ছবি r s,।

হাত কাটা পিকচার, হাত কাটা pic, হাত কাটা দাগ, গলা কাটা পিক, হাত কেটে নাম লেখা, হাতে ব্যান্ডেজ করা ছবি, হাত কাটার পিকচার, ভালোবাসার জন্য হাত কাটা পিক, ভালোবাসার জন্য হাত কাটা পিক।