ফরজ নামাজের পর আল্লাহ তাআলার দরবারে হাত তুলে যে মোনাজাত দোয়া করি এরকম কুরআন মাজিদে প্রায় ৪০ টির উপরে দোয়া রয়েছে, আর সেখান থেকে আজকে আপনাদের সঙ্গে ১০ টি দোয়া উল্লেখ করব। আপনারা খুব সহজেই শিখতে পারেন।

(১) রাববানা আ-তিনা ফিদ্ দুনইয়া হাসানাহ ওয়া ফিল আ-খিরাতি হাসানাহ ওয়া ক্বিনা ‘আযা-বান্না-র। رَبَّنَا آتِنَا فِي الدُّنْيَا حَسَنَةً وَفِي الآخِرَةِ حَسَنَةً وَقِنَا عَذَابَ النَّارِ

অর্থ: হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদেরকে দুনিয়াতেও কল্যাণ দান কর এবং আখেরাতেও কল্যাণ দান কর এবং আমাদেরকে জাহান্নামের আযাব থেকে রক্ষা কর’ (বাক্বারাহ ২০১)।

Google News

(২) রববানা আফরিগ্ আলাইনা ছাবরও ও ছাবিবত আক্বদা-মানা ওয়ানছুরনা আলাল ক্বাওমিল কাফিরিন رَبَّنَا أَفْرِغْ عَلَيْنَا صَبْرًا وَثَبِّتْ أَقْدَامَنَا  وَانصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ

অর্থ’: হে আমাদের পালনকর্তা! আমাদের ধৈর্য দান কর! আমাদেরকে দৃঢ় পদে রাখ এবং আমাদেরকে তুমি কাফির সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে সাহায্য কর’ (বাক্বারাহ ২৫০)।

(৩) রাববানা তাক্বাববাল মিন্না ইন্নাকা আনতাস্ সামী’উল আলীম। رَبَّنَا تَقَبَّلْ مِنَا إِنَّكَ أَنْتَ السَّمِيعُ العَلِيم

অর্থ’: “হে আল্লাহ! আমাদের এই কাজটি কবুল করুণ। নিশ্চয়ই আপনি সর্বশ্রোতা এবং সর্বজ্ঞ।” (বাক্বারাহ,১২৭)

(৪) রাব্বানা লা তুযিঘ কুলুবানা বা-দা ইয হাদায়তানা ওয়া হাব লানা মিল্লাযুনকা রাহমাহ ইন্নাকা আন্তাল ওয়াহাব رَبَّنَا لَا تُزِغْ قُلُوبَنَا بَعْدَ إِذْ هَدَيْتَنَا وَهَبْ لَنَا مِن لَّدُنكَ رَحْمَةً إِنَّكَ أَنتَ الْوَهَّابُ

অর্থ’: ‘হে আমাদের প্রতিপালক! সরল পথ দেখানোর পর তুমি আমাদের অন্তরকে সত্যলংঘনে প্রবৃত্ত করো না, তোমার নিকট থেকে আমাদের প্রতি রহমত দান কর। নিশ্চয়ই তুমি সবকিছুর দাতা’ (আলে ইমরান ৮)

(৫) “রাব্বানা ইন্নানা আমান্না ফাঘফির লানা যুনুবানা ওয়াকিনা আযাবান-নার رَبَّنَا إِنَّنَا آمَنَّا فَاغْفِرْ لَنَا ذُنُوبَنَا وَقِنَا عَذَابَ النَّارِ

অর্থ’: “হে আল্লাহ! আমরা ঈমান এনেছি, দয়া করে আমাদের গুনাহ মাফ করে দিন এবং আমাদেরকে জাহান্নামের আগুন থেকে রক্ষা করুন (আল-ইমরান, ১)

(৬) রাবিব হাবলী মিল্লাদুনকা যুররিইয়াতান ত্বইয়েবাতান, ইন্নাকা সামী’উদ দো’আ رَبِّ هَبْ لِي مِنْ لَدُنْكَ ذُرِّيَّةً طَيِّبَةً إِنَّكَ سَمِيعُ الدُّعَاءِ

অর্থ’: হে আমার পরওয়ারদেগার! তোমার কাছ থেকে আমাকে তুমি উত্তম সন্তান-সন্ততি দান কর। নিশ্চয়ই তুমিতো মানুষের ডাক শোনো৷

(৭) রাব্বানা ওয়া আতিনা মা ওয়া”আততানা আলা রুসুলিকা ওয়ালা তুখযিনা ইয়াওমাল – কিয়ামাহ ইন্নাকা লা তুখলিফুল মি-আদ رَبَّنَا وَآتِنَا مَا وَعَدتَّنَا عَلَى رُسُلِكَ وَلَا تُخْزِنَا يَوْمَ الْقِيَامَةِ إِنَّكَ لَا تُخْلِفُ الْمِيعَادِ

অর্থ’: “হে আল্লাহ্! আপনি রাসুলগনের মাধ্যমে আমাদের কাছে যে ওয়াদা করেছিলেন তা কবুল করুন। এবং কিয়ামতের দিন আমাদের লজ্জিত করো না। নিশ্চয়ই তুমি ভঙ্গ করোনা অঙ্গীকার! (আল-ইমরান,১৯৩)

(৮) রাব্বানা যলামনা আনফুসানা ওয়া ইললাম তাঘফির লানা ওয়াতার হামনা লানা কুনাননা মিনাল খাসিরীন رَبَّنَا ظَلَمْنَا أَنفُسَنَا وَإِن لَّمْ تَغْفِرْ لَنَا وَتَرْحَمْنَا لَنَكُونَنَّ مِنَ الْخَاسِرِينَ

অর্থ’: হে রাব্বুল আলামিন! আমরা নিজেদের প্রতি জুলুম করেছি। আপনার ক্ষমা এবং অনুগ্রহ ছাড়া আমরা ধ্বংস হয়ে যাব। (আল-আ’রাফ, ২৩)

(৯) রাব্বানা হাবলানা মিন আযওয়াযিনা ওয়াযুরইয়াতিনা কুররাতা আয়িওনি ওয়া-যা আলনা লিল-মুত্তাকীনা ইমাম رَبَّنَا هَبْ لَنَا مِنْ أَزْوَاجِنَا وَذُرِّيَّاتِنَا قُرَّةَ أَعْيُنٍ وَاجْعَلْنَا لِلْمُتَّقِينَ إِمَامًا

অর্থ’: হে আমাদের রব! তুমি আমাদেরকে এমন স্ত্রী-সন্তান দান কর যাদের দর্শনে আমাদের চক্ষুশীতল হয়ে যাবে। তুমি আমাদেরকে পরহেযগার লোকদের ইমাম (অভিভাবক) বানিয়ে দাও। (আল-ফুরকান,৭৪)

(১০) রাব্বিজ’আলনী মুক্বীমাছ ছালা-তি ওয়া মিন্ যুররিইয়াতী, রাববানা ওয়াতাক্বাববাল্ দু’আ। رَبِّ اجْعَلْنِي مُقِيمَ الصَّلَاةِ وَمِنْ ذُرِّيَّتِي رَبَّنَا وَتَقَبَّلْ دُعَاء
অর্থ’: হে আমার মালিক! আমাকে সালাত কায়েমকারী বানাও এবং আমার ছেলে- মেয়েদেরকেও নামাযী বানিয়ে দাও। হে আমার মালিক! আমার দোয়া তুমি কবুল কর।

আরো দেখুন: