অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্যঃ সমাজবিরোধী ও রাষ্ট্রের বিধান অবমাননা করে কিছু করা হলেই অপরাধ বলে গণ্য হবে। অপরাধ যেকোনো দেশের উন্নয়নের পথে বাধা হিসেবে কাজ করে। অপরাধ কি সে সম্পর্কে সবারই ধারনা রয়েছে অর্থাৎ সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ হলো অপরাধ। কিন্তুকিশোর অপরাধ বলতে বোঝায় অপ্রাপ্ত বয়স্কদেড় দ্বারা ঘটিত অপরাধ।তবে অপরাধ এবং কিশোর অপরাধকে চিহ্নিত করতে হলে আমাদের অপ্রাপ্তবয়স্কদের বয়সসীমা এবং অপরাধের ধরন সম্পর্কে জানতে হবে। কাজেই অপরাধ এবং কিশোর অপরাধের মধ্যে যথেষ্ট পার্থক্য বিদ্যমান। ব্যুৎপত্তিগত অর্থে, ল্যাটিন শব্দ Delinquor শব্দ দোষী বা অপরাধী। Delinquency ইংরেজি শব্দটি এই ল্যাটিন শব্দ থেকে এসেছে। আরও দেখুনঃ স্বরাগম কাকে বলে?

অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্য

অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্য

কিশোর অপরাধ: Juvenile ইংরেজি শব্দ যার অর্থ হলো কিশোর কিশোরী অর্থাৎ একটি নির্দিষ্ট বয়সসীমার অধিকারী। Juvenile Delinquency নির্দিষ্ট বয়েসের ঐসব কিশোর বা কিশোরী,  যারা একটি দোষ বা অপরাধযুক্ত বয়স (A Chronoligical Age) বহন করে।

প্রামাণ্য সংজ্ঞা: অপরাধ এবং কিশোর অপরাধের সংজ্ঞায় বিভিন্ন মনীষীগণ বিভিন্ন সংজ্ঞা দিয়েছেন। যা নিম্নে দেখানো হলো:

Google News

এ. ভি. জন বলেন,” Juvenile delinquency is an activity that violates the country’s customary law and social norms within a certain age. Whose character is brought before a special authority or judge for correction or rehabilitation.’’

সমাজবিজ্ঞানী বার্ড বলেন,”কোন অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোর তখনই অপরাধী হবে যখন তার অপরাধমূলক কাজ বা সামাজিক আচরণের জন্য আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রয়োজন পড়ে”। (A juvenile will be a crime only if he or she needs to take legal action for criminal or social behavior.) আরও দেখুনঃ সামাজিক আইন কি | সামাজিক আইনের গুরুত্ব

সমাজবিজ্ঞানী Doob মনে করেন,” শিশু-কিশোরদের দ্বারা সংঘটিত সামাজিকভাবে নির্ধারিত কোন কাজ যদি প্রচলিত প্রথা অনুযায়ী নির্ধারিত আইনের আওতায় আসে তবে তা কিশোর অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে”। (A socially determined act committed by children and adolescents would be considered a juvenile offense if it falls under the customary law.)

সুতরাং অপ্রাপ্তবয়স্কদের দ্বারা সংগঠিত সামাজিক, প্রচলিত সমাজ বিরোধী, আইন বিরোধী এবং সামাজিক রীতিনীতি ও মূল্যবোধের পরিপন্থী কার্যাবলীকে কিশোর অপরাধ বলে।

অপরাধ ও কিশোর অপরাধের মধ্যে পার্থক্য:

১. বয়স: কিশোর অপরাধী যারা তারা সাধারণত ৭ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে হয়ে থাকে। কিন্তু প্রাপ্ত বয়স্ক যারা অর্থাৎ ১৭ বছরের বেশি বয়সী তাদের দ্বারা সংঘটিত সমাজবিরোধী কাজই হচ্ছে বয়স্ক অপরাধ।

২. উদ্দেশ্যহীনতা: কিশোর অপরাধ করে যারা তারা ভবিষ্যৎ চিন্তা না করে অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। কিন্তু প্রকৃত অপরাধী যারা  তারা ভবিষ্যৎ জেনেই অপরাধে জড়িয়ে পরে।

৩. ব্যক্তিত্ব: কিশোর অপরাধী অপরাধ সংঘটিত করে ফেললে বিচারের ক্ষেত্রে কিশোরের ব্যক্তিত্ব এবং পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনা করে বিচার সম্পাদন করা হয়। কিন্তু প্রকৃত অপরাধীদের ক্ষেত্রে সাধারণত এ বিষয়ের বিপরীত অবস্থা বিবেচনা করা হয়।

৪. আইন ব্যবস্থা: কিশোর অপরাধের বিচার ব্যবস্থার ক্ষেত্রে তেমন জোরালো ভাবে না করে ঘরোয়াভাবে এর সমাধান করা হয়ে থাকে মূলত। কিন্তু প্রকৃত অপরাধীরা ক্ষেত্রে এটি করা হয় না তার ক্ষেত্রে সংসদের চেয়ে বা সংশোধনের পাশাপাশি শাস্তির ওপর বিশেষ জোর দেয়া হয়। আরও দেখুনঃ পেশা ও বৃত্তির মধ্যে পার্থক্য কি

৫. সঙ্গবদ্ধ চক্র: কিশোর অপরাধী যারা তারা সংঘবদ্ধভাবে থাকেনা। বিচ্ছিন্ন পরিবেশ ও পরিস্থিতির প্রভাবে অপরাধ করতে বাধ্য হয়। কিন্তু প্রকৃত অপরাধী যারা তারা সংগবদ্ধ অপরাধ চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকে।

এছাড়াও আরো কিছু পার্থক্য বিদ্যমান:

১. কাজকর্ম।

২. অপরিণত বয়স।

৩. সমষ্টিগত পার্থক্য। 

৪. পরিবেশগত পার্থক্য।

পরিশেষে বলা যায়, অপরাধ এবং কিশোর অপরাধ আমাদের দেশে একটি মারাত্মক সামাজিক সমস্যা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে এবং দিন দিন বেড়েই চলেছে যা সমাজ জীবনের জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।